বিয়ের সোনার আংটি হারিয়ে ফেলায় নির্যাতনের শিকার,শ্বশুরবাড়িতে অস্বাভাবিক মৃত্যু গৃহবধূর

অবতক খবর,৩ নভেম্বরঃ বিয়ের সোনার আংটি হারিয়ে ফেলায় নির্যাতনের শিকার,শ্বশুরবাড়িতে অস্বাভাবিক মৃত্যু গৃহবধুর,খুনের অভিযোগ পরিবারের,আটক স্বামী সহ চরজন।

হিন্দমোটর কোতরং শাঁখারি লেনের সাথী সিং এর ২০১৭ সালে বিয়ে হয়েছিল কানাইপুরের বড় বহেরার সুরজিৎ চৌধুরীরর সঙ্গে।বিয়ের সময় জামাইকে সোনার আংটি,মেয়ের কানের দুল খাট বিছানা সহ যৌতুক দেওয়া হয়।বধুর মা বানী সিং এর অভিযোগ বিয়ের সময় নগদ টাকা দিতে পারিনি বলে মেয়েকে নানা রকম গঞ্জনা শুনতে হত।শ্বশুর শ্বাশুড়ি এক লাখ টাকা চেয়েছিল।কিন্তু সেই টাকা দেওয়ার সামর্থ্য আমাদের নেই।তাই মেয়েকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হত।দু দিন আগে ফোনে কথা হয় সাথী জানায় বিয়ের আংটি খুঁজে পাচ্ছে না।গতকাল সকালেও কথা হয় মায়ের সঙ্গে সাথী মাকে জানায় আংটি খুঁজে পায়নি।তাকে মারধোর করে হুমকি দিয়েছে আংটি না পেলে মেরে ফেলবে।বিকালে শ্বশুর ফোন করে খবর দেয় মেয়ে গলায় দড়ি দিয়েছে।

বধুর দিদি রাখি সিং বলেন,বিয়ের পর থেকে অত্যাচার চলত বোনের উপর।বিয়ের আংটি হারিয়ে যাওয়ার বোনকে দোষী ঠাওরে অত্যাচার শুরু হয়।ভগ্নিপতি ফোন করে জানায় আংটি হারিয়েছে দিতে হবে।শ্বশুর মাঝে মধ্যেই হুমকি দিত।বোনের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করত। শ্বশুরবাড়ির লোকেরাই ওকে মেরে ঝুলিয়ে দিয়েছে।দোষীদের শাস্তি চাই।

উত্তরপাড়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে।পুলিশ বধুর স্বামী সুরজিৎ,শ্বশুর মলয়,শ্বাশুড়ি রিনি ও ভাসুর অভিজিৎ চৌধুরীকে আটক করেছে।মৃতদেহ শ্রীরামপুর ওয়ালস হাসপাতালে ময়না তদন্তে পাঠানো হয়।