বহরমপুরে জেলা কংগ্রেস কার্যালয় সাংবাদিক বৈঠকে বহরমপুরের সংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী

অবতক খবর,১২ এপ্রিলঃ আজ বহরমপুরে জেলা কংগ্রেস কার্যালয় সাংবাদিক বৈঠকে বহরমপুরের সংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী তিনি তৃণমূলের ভবিষ্যতের রুপো রেখা তুলে ধরলেন। তিনি বলেন আমি গতকালও বলেছি যে আজকে তৃণমূল দলের মধ্যে খোকা বাবু নিজের চাইছে এই বাংলার ভবিষ্যৎ হতে। অর্থাৎ দিদির জাগায় আসতে চাইছেন তিনি যার ফলে দিদির যারা কাছের লোক সেগুলি আস্তে আস্তে সরে যাচ্ছে, অর্থাৎ সরে যাচ্ছে বা সরিয়ে দেয়া হচ্ছে, বললেন অধীর। তিনি বলেন আমি আজকে যে কথা বলছি, সে কথা মিলিয়ে নিবেন।

খোকাবাবু সুকৌশলে ভারতবর্ষের বিজেপির পার্টির সঙ্গে গোপন সমঝোতা করেছে, আগামী দিনে তার মুখ্যমন্ত্রী পদে অভিষিক্ত হওয়ার লক্ষ্যে তিনি বলেন আজকে আমার এই কথা শুনতে অদ্ভুত লাগতে পারে। কিন্তু মিলিয়ে নিবেন আমার এই ভবিষ্যৎ বাণী খোকাবাবু সম্বন্ধে। এই বাংলায় বিজেপির সঙ্গে আতাত করে খোকাবাবু দিদির জায়গায় মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার স্থলাভিষিক্ত করেছে , বলেন অধীর। সেই কারণে দিদির কাছের লোক সব বিতাড়িত হচ্ছে আর খোকাবাবুর কাছের লোকদের জায়গা বাড়ছে আপনারা খেয়াল করে দেখবেন। বললেন বহরমপুরের সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী।

মুর্শিদাবাদের তৃণমূলের জেলা কমিটির নাম ঘোষণা করার পূর্বেই আবু তাহের খান চেয়ার ছেড়ে বেরিয়ে যা প্রসঙ্গে অধীর রঞ্জন চৌধুরী বললেন যে মুর্শিদাবাদের তৃণমূল কংগ্রেসের খেয়ে পড়ে বড় হয়ে গেছে কংগ্রেসের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে এখানে তৃণমূলের জন্ম, তিনি বলেন এই তৃণমূল বলে তো এখানে কিছু ছিল না আগামী দিনে তৃণমূল বলে কিছু থাকবে না সেটা আমাদের প্রমাণ করার লড়াই শুরু হয়েছে বললেন অধীর। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন পশ্চিমবঙ্গে এই সরকার আরো ১৫ বছর থাকবে না কতদিন থাকবে সেটাতো পশ্চিমবঙ্গের মানুষ ঠিক করবে তবে এ সরকার যে চোরের সরকার সবচেয়ে বেশি চর্যবৃতি এই শিক্ষা দপ্তরে হয়েছে সেটা কিন্তু শিক্ষামন্ত্রীর জানা উচিত এবং শিক্ষা মন্ত্রীকে এ বিষয়ে স্পষ্ট করে বলা উচিত যে শিক্ষা দপ্তরে এখনো পর্যন্ত যে নথি তথ্য আছে তাতে তৃণমূলের আর কোন কোন নেতা এই শিক্ষক নিয়োগের যে দুর্নীতি হয়েছে সেই দুর্নীতির তথ্য প্রকাশ করে জানাক।