সল্টলেকে ইডি অফিসের বাইরে, ভুয়ো ইডি অফিসারকে উত্তেজিত জনতার মার। রক্তাক্ত অবস্থায় অভিযুক্তকে গাড়িতে করে নিয়ে যায় অভিযোগকারীরা

অবতক খবর,৩০ জানুয়ারি: সল্টলেকে ইডি অফিসের বাইরে, ভুয়ো ইডি অফিসারকে উত্তেজিত জনতার মার। রক্তাক্ত অবস্থায় অভিযুক্তকে গাড়িতে করে নিয়ে যায় অভিযোগকারীরা।

মঙ্গলবার দুপুরবেলায় হাত বাধা ও গলায় ইডির ভূয়ো আই কার্ড ঝোলানো অবস্থায় এক ব্যক্তিকে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে বেশ কিছু উত্তেজিত মানুষ। তাদের অভিযোগ নিজেকে ইডি অফিসার পরিচয় দিয়ে ওই ব্যক্তি তাদের পরিবারের মেয়ের সাথে বিয়ে করার ফন্দি আঁটে। এমনকি অভিযুক্ত ব্যক্তি ওই পরিবারের থেকে টাকা নিয়েছে বলে দাবি করে অভিযোগকারীরা। সল্টলেকে ইডি অফিসের সামনেই অভিযুক্তকে বেধারক মারধর করে তারা।

ভুয়ো ইডি অফিসারের নাম প্রদীপ সাহা, সোনারপুরের বাসিন্দা। অভিযোগ, বিরাটির বাসিন্দা একটি মেয়ের সাথে তার সোশ্যাল মিডিয়াতে যোগাযোগ হয়। এরপর তাদের মধ্যে পরিচিতি বাড়ে এবং অভিযুক্ত প্রদীপ সাহা নিজেকে ইডি অফিসার পরিচয় দিয়ে মেয়েটিকে বিয়ে করতে চায়। এমনকি মেয়েটির সাথে বিয়ের কার্ড পর্যন্ত ছাপা হয়ে গেছে। এরপর মেয়েটির পরিবারের লোকেদের সন্দেহ হওয়ায় তারা সল্টলেকে ইডি দপ্তরে এসে প্রদীপ সাহার সম্বন্ধে খোঁজ নিলে জানতে পারে, ওই নামে কেউ ইডির অফিসে কাজ করে না। এরপরই মঙ্গলবার প্রদীপ সাহাকে বেঁধে নিয়ে তারা উপস্থিত হয় সল্টলেকে সিজিও কমপ্লেক্সের ইডির অফিসে। ইডি অফিসের বাইরে অভিযুক্ত প্রদীপ সাহাকে মারতে থাকে তারা। পরিস্থিতি উত্তেজিত হয়ে উঠছে বুঝতে পেরে রক্তাক্ত অবস্থায় অভিযুক্তকে গাড়িতে করে ই ডি অফিসের সামনে থেকে নিয়ে চলে যায় অভিযোগকারী পরিবার।