সন্দেশখালিতে সেন্ট্রাল এজেন্সি ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর ওপর আক্রমণকে কনডেম করলেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম

অবতক খবর,৫ জানুয়ারি: সন্দেশখালিতে সেন্ট্রাল এজেন্সি ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর ওপর আক্রমণকে কনডেম করলেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম।
আজকের এই ঘটনাকে সমর্থন করার বিষয় নিয়ে তাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি স্পষ্ট তোই জানান,,, এই জাতীয় কোন আক্রমন কে তিনি সমর্থন করেন না। পাশাপাশি তিনি এও বলেন এ রাজ্যের প্রশাসন যথেষ্ট সক্রিয় প্রশাসন প্রশাসনের কাজ করবে।
সন্দেশখালি তে সাংবাদিকদের ওপর আক্রমণ ও নিগ্রহের ঘটনার ও সমালোচনা করলেন ফিরহাদ হাকিম। যদিও এ প্রসঙ্গে রাজ্যপালের উদ্বেগ ও সাংবাদিকদের উপর আক্রমণ নিয়ে তিনি যে কথা বলেছেন,, তা সর্বভারতীয় স্তরে যে সমস্ত সাংবাদিক রয়েছেন তাদের প্রত্যেকের বিষয়ে বলা উচিত ছিল । হাতরাস থেকে শুরু করে,, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সাংবাদিকদের ওপর আক্রমণ এবং যেভাবে খুন করা হচ্ছে তার বিরুদ্ধে কেন রাজ্যপাল কিছু বলছেন না মুখ বুজে রয়েছেন। প্রশ্ন ফিরহাদের।

এদিন কলকাতা পৌরসভার অন্তর্গত বোড়ো সেভেনের প্রশাসনিক বৈঠক করেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

এ প্রসঙ্গে মেয়র বলেন,,, বেশ কিছুদিন ধরেই বড় সেভেনের অন্তর্গত বেশ কিছু ওয়ার্ডে বেআইনি নির্মাণের অভিযোগ আসছিল যার মধ্যে বেশ কিছু বেআইনি নির্মাণ ইতিমধ্যেই ভেঙে দেওয়া হয়েছে কলকাতা পৌরসভার পক্ষ থেকে। বিগত বাম জমানার সময় যে সমস্ত বেআইনি নির্মাণ কার্য করা হয়েছিল সেগুলির তথ্য অনুসন্ধান করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়টি নিয়েও আলোচনা করা হচ্ছে বলেও এদিন জানান মেয়র।

পাশাপাশি বোড়ো সাতের অন্তর্গত ওয়ার্ড গুলিতে কতগুলি ওয়াটার বডি রয়েছে কতগুলি ওয়াটার বডি বুঝিয়ে ফেলা হয়েছে তার তালিকা তৈরি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যে ওয়াটার বডি গুলি সংস্কারের প্রয়োজন রয়েছে সেগুলিকে সংস্কার করে রাজ্য সরকারের ডিপার্টমেন্ট অফ ফিশারিজের হাতে তুলে দেওয়া হবে, মাছ চাষ করার জন্য। জানালেন ফিরহাদ।

বড় সাথের সব থেকে অসুবিধার বিষয় হল ন্যারো রোড। যার জন্য জঞ্জাল সাফাই থেকে শুরু করে বেশ কিছু পুরো পরিসেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে প্রায়শই প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে আগামী দিনে একটি অ্যাকশন প্ল্যান তৈরি করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বলেও এদিন জানান মেয়র।