মন্ত্রী এবং সভাপতির উপস্থিতিতে সিডিপিওর তত্ত্বাবধানে হরিশ্চন্দ্রপুরে পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষে মনোগ্রাহী অনুষ্ঠান থেকে সচেতনতার বার্তা, অন্নপ্রাশনের আদলে শিশুদের মুখে তুলে দেওয়া হল অন্ন

অবতক খবর,মালদা,সানু ইসলাম,০৩সেপ্টেম্বর: সিডিপিওর তত্ত্বাবধানে নতুন আঙ্গিকে পালন জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ। উপস্থিত জন-প্রতিনিধি থেকে শুরু করে আধিকারিকরা। নাচে,গানে উৎসবের পরিবেশ। অন্নপ্রাশনের আদলে অন্ন তুলে দেওয়া হল শিশুদের মুখে। অনুষ্ঠান থেকে সচেতনতার বার্তা।প্রসঙ্গত জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষে হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লকের সহজ তথ্য মিত্র কেন্দ্রে অঙ্গনওয়াড়ি দপ্তরের পক্ষ থেকে সিডিপিও আব্দুল সাত্তারের তত্ত্বাবধানে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় রবিবার। পাশাপাশি স্টোর কিপার প্রদীপ কুমার দাস কে বিদায় সংবর্ধনা জানানো হয়। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের প্রতিমন্ত্রী তাজমুল হোসেন, হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লক সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক অনির্বাণ বসু, হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লক সিডিপিও আব্দুল সাত্তার, হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লক পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তাহমিনা খাতুন, ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক অমল কৃষ্ণ মন্ডল তুলসীহাটা সার্কেলের বিদ্যালয় পরিদর্শক মাসুম করিম আনসারী সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। প্রথমে প্রদীপ প্রজ্জলন এবং জাতীয় সংগীতের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। পরবর্তীতে যে ভাবে অন্নপ্রাশনের সময় শিশুদের সাজিয়ে জাঁকজমক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদের মুখে অন্ন তুলে দেওয়া হয়। ঠিক সেই আদলে স্থানীয় কয়েকজন শিশুকে অন্নপ্রাশনের সাজে সাজিয়ে তাদের মুখে অন্ন তুলে দেন উপস্থিত আধিকারিকরা।যে মনগ্রাহীর দৃশ্য এবং উদ্যোগ দেখে আপ্লুত অতিথিরা। এছাড়াও স্থানীয় শিল্পীরা সংগীত এবং নৃত্য পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলেন। মূলত এই অনুষ্ঠান থেকে সচেতনতার বার্তা দেন সিডিপিও। এখনো বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে কম বয়সে বিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটতে থাকে। আর তারপরে নির্দিষ্ট বয়সের আগে সন্তান সম্ভবা হয়ে পড়ে অনেক কিশোরী। পুষ্টির অভাবে তারা অসুস্থ হয়ে পড়ে।ফলে তাদের সদ্যোজাত দুর্বল এবং অসুস্থ হয়।পুষ্টি দিবসের এই অনুষ্ঠান থেকে মূলত এই নিয়ে সচেতনতার বার্তা দেওয়া হয়। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পেরে আনন্দ প্রকাশ করেন স্থানীয় বিধায়ক এবং পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতিও।

প্রসঙ্গত পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষে এই ধরনের অনুষ্ঠান হরিশ্চন্দ্রপুরে প্রথম। সচেতনতা বার্তা দেওয়ার যে উদ্যোগ এবং প্রচেষ্টা তা নজর কেড়েছে সকলের। সিডিপিওর উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন উপস্থিত সকল অতিথিরা। এখনো শুধুমাত্র সচেতনতার অভাবে প্রান্তিক এলাকায় অনেকেই অপুষ্টির শিকার হয়। সেক্ষেত্রে এই ধরনের অনুষ্ঠান যথেষ্ট প্রয়োজনীয় এবং তাৎপর্যপূর্ণ।