বিরোধীদের অভিযোগ মন্তেশ্বরে নামে বেনামে প্রচুর সম্পত্তি করেছেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক 

অবতক খবর,২৮ অক্টোবর, জ্যোতির্ময় মন্ডল,পূর্ব বর্ধমান:রেশন দুর্নীতির তদন্তে কলকাতায় ইডি গ্রেপ্তার করেছে বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে। তার বিশাল বাংলোর সন্ধান মিলেছে শান্তিনিকেতনেও । পূর্ব বর্ধমানের বামুনপাড়া অঞ্চলের পূর্ব খাঁপুর গ্রামে একটি বিরাট বাড়ী রয়েছে ।ওই বাড়িটিও মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের।

পূর্ব বর্ধমানের মন্তেশ্বরের বামুনপাড়া অঞ্চলের পূর্ব খাঁপুর বাসিরা বলছেন মন্ত্রী এলে বাড়ির চারপাশে বিশেষ রক্ষী মোতায়েন থাকত। তিনি কি করছেন ভেতরে কেউ জানে না। গোটা বাড়ীটা সিসিটিভি মোড়া । তবে মন্ত্রীর সাথে যারা আসছেন তাদেরও বাইরে দেখা যেত না। তারা আরও জানান
জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকএই বাড়িতে আসত মাঝে মাঝে ।
২০১১ সালে রাজ্যে সাড়ে তিন দশকের বাম জমানার পতন হয়েছে। তৃণমূল সরকারের আমলে প্রথমবার খাদ্যমন্ত্রী ছিলেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। পরের তিনি বারবার ফতোয়া জারি করে বলেছিলেন সিপিএমকে সামাজিক বয়কট করতে হবে ।এখন তিনি বনমন্ত্রী।
রেশনে বিপুল আর্থিক দুর্নীতির তদন্তে মন্ত্রীকে গ্রেপ্তার করেছে ইডি। যদিও মন্ত্রীর দাবি এসবই ষড়যন্ত্র। তিনি বিজেপির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করেছেন । মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক পুর্ব খাঁপুর বাড়িতে মাঝে মাঝে আসতেন তিনি ,জানান এলাকাবাসী। স্থানীয় তৃণমূল নেতারা কিছু বলতে চাইছেন না। নাম প্রকাশের অনচ্ছুক কিছু গ্রামবাসীর ও সিপিআইএমের স্থানীয় নেতাদের অভিযোগ এই বাড়িতে তল্লাশি হলেই অনেক কিছু নথি বা প্রমাণপত্র মিলতে পারে।
মন্তেশ্বর বিধানসভার বিজেপির এক নম্বর মন্ডল সভাপতি ঝুলন হাজরা বলেন বর্তমান বনমন্ত্রী বাড়ির মন্তেশ্বর ব্লকের বামুনপাড়া অঞ্চলের পূর্ব খাঁপুর গ্রামে। মন্ত্রীর পিতা শক্তিপদ মল্লিক একজন স্বাধীনতা সংগ্রামী। ওনার ছেলে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক রেশন ব্যবস্থা থেকে যেভাবে দুর্নীতি করেছে, তাতে আমরা লজ্জিত। ভুয়ো রেশন কার্ডের মধ্যে গরিব মানুষের মুখের আহার কেড়ে নিয়ে দুর্নীতি করে ব্যাংকে কোটি কোটি টাকা সঞ্চয় করেছে। বাড়ি, গাড়ি, মাঠের জমি, আইটিআই কলেজ করেছিল। মন্ত্রীর গ্রামে আইটিআই কলেজের জন্য খরচ হয়েছে, কয়েক কোটি টাকা , এই টাকা কোথা থেকে এসেছে সেটাও খতিয়ে দেখার কথা বলেন বিজেপি নেতা ঝুলন হাজরা। গ্রামবাসীরা ভয়ে হোক আর ভক্তিতেই হক , মুখ খুলতে না চাইলেও ,মন্ত্রীর গ্রামের কেউ কেউ বলেন মন্ত্রী দুর্নীতি সঙ্গে জড়িত না থাকলে ইডি গ্রেপ্তার করবে কেন, নিশ্চয়ই ইডি কিছু প্রমাণ পেয়েছে বলে মন্ত্রীকে গ্রেফতার করেছে। আবার কেউ কেউ বলছেন মন্ত্রী তার গ্রামের আইটিআই কলেজ, রাস্তা, বিদ্যুৎ দপ্তরে সাবস্টেশন, সহ অনেক উন্নতি করেছেন , মন্ত্রীর গ্রেফতার হওয়াতে আমরা অবাক এটা বিজেপির চক্রান্তের শিকার। তবে আবার কেউ কেউ বলছেন মন্ত্রী আমাদের গ্রামের বাসিন্দা হওয়ায় আমাদের লজ্জা লাগছে এই খবরটা জানার পর বলে জানান কিছু গ্রামের বাসিন্দা।