পাঁশকুড়ার অভিযুক্ত সাব পোস্টমাস্টারের বিপুল সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত শুরু করল ইডি

অবতক খবর,১৬ জানুয়ারি: পূর্ব মেদিনীপুর জেলার এক ডাক বিভাগের সাড়ে চার কোটি টাকা আর্থিক দুর্নীতির ঘটনায় অভিযুক্ত সাব পোস্টমাস্টারের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত শুরু করল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার এক ডাক বিভাগের কর্মীর বিরুদ্ধে কয়েক কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল। সেই সময় ময়না থানায় অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন ময়নার রামচন্দ্রপুর ডাক বিভাগের কর্মী তথা পাঁশকুড়ার বাসিন্দা লক্ষণ হেমব্রম।

শনিবার অভিযুক্তকে ইডি অফিসে তলব করা হয়েছিল। সেখানে তাঁর ৩কোটি ৪৬লক্ষ টাকা মূল্যের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত শুরু করেছে ইডি। ইতিমধ্যে অভিযুক্তের সমস্ত ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট সিজ করা হয়েছে। শুধু লক্ষ্মণচন্দ্র হেমব্রম নয়, তাঁর স্ত্রী পেশায় ডাককর্মী, ছেলে এবং মেয়ের অ্যাকাউন্টের ফিক্সড ডিপোজিট এবং বিমার সবকটি অ্যাকাউন্ট সিজ করা হয়েছে। ওইসব অ্যাকাউন্টে ৭০ থেকে ৮০লক্ষ টাকা রয়েছে।

শুধুমাত্র অভিযুক্ত পোস্টমাস্টারের স্ত্রীর স্যালারি অ্যাকাউন্টে হস্তক্ষেপ করেনি ইডি। তার বসতবাড়ি ছাড়া সমস্ত স্থাবর অস্থাবর বাজেয়াপ্ত করার কাজ ইতিমধ্যে শুরু করে ইডি, এমনটাই সূত্র মারফৎ জানা যায়। ইডি সূত্রে আরো খবর তার সমস্ত পাসপোর্ট এবং ভিসা নিয়ে নেওয়া হয়। ভুরি ভুরি দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া যায় লক্ষণ হেমব্রম এর বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত লক্ষণ চন্দ্র হেমব্রম জানান গত শনিবার আমি ইডি দপ্তরে গিয়েছিলাম তখনই জানতে পারি ইডি আমার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার কাজ শুরু করেছে। তবে একতরফাভাবে ইডি কাজ করছে, তবে আইনের বিচার ব্যবস্থার ওপর আমার বিশ্বাস ও ভরসা রয়েছে আমি ন্যায় বিচার পাব। দুর্নীতি হয়েছে নিজের মুখে স্বীকার করেন লক্ষণ হেমব্রম।

প্রতিবেশীদের দাবি যদি দুর্নীতি করে থাকেন তবে আইনের মাধ্যমে উপযুক্ত আর শাস্তি পাওয়া উচিত। আইন আইনের পথে চলবে।