অবতক খবর,১৩ জানুয়ারি: আজ বহরমপুর দলীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠকে বললেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী।তিনি বলেন হাইকোর্ট যেখানে বলছেন আমাদেরকে ভোট করতে হবে ,আমরা ভোট করব। তিনি আরো বলেন যে আমার বক্তব্য এই জায়গায় যেখানে মানুষের অংশগ্রহণই শেষ কথা ,সেখানে এই করোনা সংক্রমণে কি করে মানুষ বাইরে ভোট দিতে যাবে। যেখানে মানুষের স্বতঃস্ফূর্ততা থাকবে না।

সেটি ভোট হলেও আমি বলব অন্তশাসনে ভোট হবে। দিদি বছরের পর বছর ভোট আটকে রাখলেন, দলের নেতাদের প্রশাসক বানিয়ে পৌরসভা চালালেন। আর মানুষের যখন দুঃসময়, মানুষ করোনা সংক্রমণে ব্যতিব্যস্ত ঠিক সেই সময়ই দিদির ভোট করার কথা মনে পড়ল। কারণ মিউনিসিপ্যালিটির প্রশাসক সরকারি লোক হবে,সেখানে দিদি কি করে পার্টির লোক বসিয়ে রাখেন। তার রাজত্বে সব হতে পারে সেটা তিনি দেখাচ্ছেন।

বাংলায় মমতা ব্যানার্জি একটা কীর্তি স্থাপন করলেন। যে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো সরাসরি নির্বাচনী দপ্তর বা নির্বাচনী প্রচারে কি করে ব্যবহার করা যায় সেটি তিনি দেখাচ্ছেন। যেটা প্রশাসনের করার দরকার সেটা পৌরসভার তার কর্মীরা প্রশাসক সেজে করে বেড়াচ্ছেন।