নাবালিকার বিয়ের রুখে দিল পুলিশ,বিয়ের পিঁড়ি থেকে গ্রেফতার বর বাবাজীবন

অবতক খবর,২৭ সেপ্টেম্বর,জয়নগর:—– বিয়ের প্যান্ডেল তৈরি , আত্মীয়-স্বজন চলে আসতে শুরু করেছে, চলছে বিয়ের প্রস্তুতি। বিয়েবাড়ি হইচই, গোপন সূত্রে খবর পাওয়ার পর বিয়ের মন্ডপে হানা দেয় পুলিশ। পুলিশি তৎপরতায় ভেস্তে যায় নাবালিকার বিয়ে। বিয়ের পিঁড়ি থেকে গ্রেফতার বর বাবাজীবন। এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগর থানার অন্তর্গত বাগচী গোবিন্দপুর এলাকায়। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাগচী গোবিন্দপুর গ্রামের এক নাবালিকার সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল মুজাহিদ শেখের সাথে কুলতলি থানার দেউলবাড়ী গ্রামের এর নাবালিকা রেশমা খানকে। প্রেমের জালে ফুসলিয়ে অভিযুক্ত তার নিজের বাড়িতে নিয়ে আসে। তারপর রীতিমত ওই যুবকের বাড়িতে বিয়ের আয়োজন করা হয়। গোপন সূত্রে খবর পাওয়ার পর জয়নগর থানার পুলিশ অভিযুক্ত যুবকের বাড়িতে হানা দেয়, ওই নাবালিকা মেয়েকে উদ্ধার করে। এই ঘটনায় অভিযুক্ত মুজাহিদ শেখকে গ্রেফতার করে পুলিশ। অভিযুক্তকে মঙ্গলবার বারুইপুর মহকুমার আদালতে পেশ করা হয়, ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক। পাশাপাশি মহামান্য আদালতের কাছে নাবালিকাকে গোপন জবানবন্দী দেওয়ার জন্য পেশ করা হয় । গোপন জবানবন্দী দেওয়ার পর নাবালিকাকে হোমে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক। পুলিশ সূত্রে জানা যায় , অভিযুক্ত যুবকের সাথে কুলতলির দেউলবাড়ী গ্রামের ওই নাবালিকা মেয়ের অনেকদিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল । পরিবারের তরফ থেকে জানা গেছে,রেশমার সাথে মুজাহিদের বিয়ে দিতে রাজি ছিলনা ।

এরপর তাকে ফুসলিয়ে মুজাহিদ জয়নগরে নিয়ে আসে। নাবালিকার পরিবার কুলতলী থানাতে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে । সেই অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তদন্ত শুরু করে। এরপর জয়নগর থানার পুলিশ খবর পায় যে জয়নগর থানার অন্তর্গত বাগচি গোবিন্দপুর এলাকায় একটি বিয়ে বাড়ির আয়োজন করা হয়েছে। পুলিশ খবর পাওয়ার পরে ওই বিয়ে বাড়িতে হানা দেয় , নাবালিকাকে উদ্ধার করে, পাশাপাশি অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করে।