নবরথ
তমাল সাহা

শ্রবণ করো হে নরনারীগণ
শ্রবণ করো হে সর্বজন!
রথ তো প্রাচীন গাথা
নবরথ কথা করিনু বর্ণন।

রথ প্রতীক মাত্র
সে তো সভ্যতার গতিশীল চক্রযান।
রথীরা চালনা করে রথ
জেনে রাখো কাছি-রশি শ্রমশক্তি,
টেনে চলে শক্তিমান মজদুর পালোয়ান।

জগন্নাথ দেবতা নহে, প্রতীক পথপ্রদর্শক।
সেনাপতি নেই, সে যুদ্ধ নাস্তর্থক।
সমুদ্রগর্জন ছদ্মবেশী রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসে কম্পমান সুভদ্রা শঙ্কিত
রক্ষা করো নারীদের পার্শ্বে থাকো অবিরত।
হলস্কন্ধে বীরভদ্র বলরাম,সঙ্গে রাখো তাকে
রাষ্ট্রীয় যুদ্ধে করো হে শক্তি সংহত।

শোনো হে উপস্থিতজন রথের মেলায়–
জনগণই শক্তি
তোমরা নহে শুধু দর্শক,সহযোদ্ধা প্রতিনিয়ত।

যুযুধান রথ, চূড়ায় উজ্জ্বল পতাকা উড্ডীন
যুদ্ধভেরী বাজে,
সম্মুখে সুনিশ্চিত রঙিন বিজয়ের দিন।