অবতক খবর,২৮ জুনঃ চিটফান্ড দুর্নীতিতে বিজেপির ছত্রছায়ায় থাকা অভিযুক্তদের ছাড় এবং সিবিআই, ইডির পক্ষপাতিত্ব। জোড়া অভিযোগ নিয়ে রাজ্যপালের দ্বারস্থ হল তৃণমূল প্রতিনিধিদল। মঙ্গলবার পূর্বনির্ধারিত পরিকল্পনা অনুযায়ী, বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ ৮ সদস্যের প্রতিনিধি দল যান রাজভবনে ।

দীর্ঘক্ষণ রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়ের সঙ্গে কথাবার্তা বলেন ব্রাত্য বসু, কুণাল ঘোষ, সায়নী ঘোষরা। তাঁর সঙ্গে মত বিনিময় হয়েছে। রাজ্যপাল নিজেও এনিয়ে টুইট করেছেন।রাজভবন থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ বলেন, ‘রাজ্যপালের সঙ্গে আমাদের দীর্ঘ কথাবার্তা হয়েছে। আমরা তাঁকে নিজেদের সব কথা জানিয়েছি। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলিকে রাজনৈতিকভাবে কাজে লাগানো হচ্ছে। আমরা দেখতে পাচ্ছি, একই মামলায় তৃণমূল নেতাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে, অথচ বিজেপিতে থাকলেই ছাড় পাওয়া যাচ্ছে। বিষয়টি তাঁর নজরে এনেছি। তিনি শুনে নিজের মতামত দিয়েছেন, আমরাও পালটা বলেছি যে আমরা কী মনে করছি। তৃণমূল এবং সরকারের পক্ষ থেকে রাজ্যপালের সঙ্গে এই আলোচনা জারি থাকবে।’

এদিন ব্রাত্য বসুর নেতৃত্বে রাজভবনে যাওয়া প্রতিনিধিদলের তালিকায় কুণাল ঘোষ, সায়নী ঘোষ ছাড়াও ছিলেন শশী পাঁজা, তাপস রায়, সদ্য দলবদল করা অর্জুন সিং। প্রায় আড়াই ঘণ্টা ধরে এদিন রাজ্যপালের সঙ্গে আলোচনা করেছেন তাঁরা। কুণাল ঘোষের কথায়, ‘ কিছু ক্ষেত্রে কেন্দ্রের তদন্তকারী সংস্থাগুলি রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় হয়ে কাজ করছে। ইডি, সিবিআইয়ে বহু কৃতী অফিসার আছেন, তাঁদের রাজনৈতিকভাবে কাজে লাগাচ্ছে বিজেপি। বিজেপিতে যারা নাম লেখাচ্ছে, তাদের আইনের ঊর্ধ্বে রাখা হচ্ছে। বিজেপি যেন ওয়াশিং মেশিন। আর বিজেপি নেতৃত্ব মাঝেমধ্যেই রাজভবনে এসে তাঁদের সঙ্গে রাজ্যপালের ঘনিষ্ঠতা দেখানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু রাজ্যপাল সাংবিধানিক পদ। আমরাও যথাযথ পদক্ষেপের আবেদন করতে আসতেই পারি। আর তৃণমূল ও সরকারের সঙ্গে রাজভবনের এই যোগাযোগ জারি থাকবে।’