কলকাতা পৌর সংস্থার হাজিরা নিয়ে সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ তৃণমূল পরিচালিত শ্রমিক ইউনিয়ন

অবতক খবর,২০ সেপ্টেম্বরঃ কলকাতা পৌর সংস্থার হাজিরা নিয়ে সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ তৃণমূল পরিচালিত শ্রমিক ইউনিয়ন।বায়োমেট্রিক হাজিরা বাধ্যতামূলক করার ফলে বিপাকে পড়েছেন কলকাতা পৌর সংস্থার অধীনে কর্মরত মজদুররা। তারই প্রতিবাদে তৃণমূল পরিচালিত শ্রমিক কর্মচারীদের সংগঠনের পক্ষ থেকে এদিন কলকাতা পৌর সংস্থায় বিক্ষোভ দেখান শ্রমিক মজদুর রা। তাদের দাবি ছিল যে অনেক সময় তাদের কে অনেক দূরদূরান্তে কাজের জন্য যেতে হয়। ফলে তাদের কে নিজের কর্মস্থলে গিয়ে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে হাজিরা দেওয়া সম্ভব হয় না। এমন কি কাজের ফাঁকে তাদের খাওয়া দাওয়ার সময় থাকে না। তাই বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে হাজিরা দেয়ার বিষয়ে তাদের ছাড় দেওয়া হোক। এই দাবি কে কেন্দ্র করে তৃণমূল পরিচালিত শ্রমিক ইউনিয়ন কে এম সি এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের পক্ষ থেকে মেয়র কে প্রস্তাব দেওয়া হয়। যেখানে বায়োমেট্রিক হাজিরা ছাড় দেওয়ার দাবি করা হয়। মেয়র ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গে সদর্থক বৈঠকের আলোচনার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত হয় যে তাদের হাজিরা সময় সীমা বৃদ্ধি করা হবে। যাতে দিনের শেষ দূরদূরান্ত থেকে এসে মজদুর দের হাজিরা দেওয়া সম্ভব হয়।

তার জন্য বায়ো মেট্রিক পদ্ধতিতে সময় সীমা সন্ধ্যা 6:30 থেকে বাড়িয়ে 7 টা পর্যন্ত করার জন্য পৌর কমিশনার বিনোদ কুমার কে নির্দেশ দিয়েছেন মেয়র বলে জানালেন কলকাতা পৌর সংস্থায় তৃণমূল পরিচালিত শ্রমিক কর্মচারীদের সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শ্রীমন্ত ঘোষাল।তিনি আরো জানান যে মজদুর দের খাওয়া দাওয়া নিয়ে সমস্যা মিটাতে উদ্যোগী হয়েছেন মেয়র। তিনি জানিয়েছেন যে মজদুর দের খাওয়া দাওয়া জন্য মা ক্যান্টিনে ব্যাবস্থা করে দেওয়া হবে। এছাড়া 12 থেকে 2 টা মধ্যে তারা যেখানে যে ওয়ার্ডে কাজ করবেন। সেই ওয়ার্ড বা বোরো অন্তর্ভুক্ত সুলভ শৌচালয় স্নান করার জন্য প্রয়োজনীয় সময় ছাড় দেওয়া হবে বলে জানালেন তৃণমূলের শ্রমিক নেতা শ্রীমন্ত ঘোষাল। তবে তারা তাদের কর্মসূচি কে বিক্ষোভ বলতে নারাজ। তাদের দাবি গঠনমূলক প্রস্তাবের মাধ্যমে সাধর্থক ভাবে আলোচনার ভিত্তিতে তারা মজদুর দের সমস্যা নিয়ে সরব হয়েছেন বলে তৃণমূল পরিচালিত শ্রমিক কর্মচারীদের সংগঠনের দাবি।