এবার পুলিশের জালে ভুয়ো পুলিশ,ঘটনা উত্তর চব্বিশ পরগনার

অবতক খবর,১১ জানুয়ারি: রাজ্যজুড়ে শুধু ভুয়ো আর ভুয়ো। ভুয়ো ডাক্তার থেকে শুরু করে ভুয়ো আইএএস,সিআইডি ভুয়ো সিআইডি। এবার ধরা পড়ল ভুয়ো পুলিশ।পুলিশ আটক করল ভুয়ো সাব ইন্সপেক্টরকে।

ধৃত সেখ নাদিম হোসেন, উত্তর ২৪ পরগনার খড়দার বাসিন্দা। বিগত ৩ বছর ধরে ধৃত দেগঙ্গা এলাকায় বসবাস করত। এবার ধৃতের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে,সে একাধিক ব্যক্তির কাছ থেকে চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা নিয়েছে। ধৃত নিজেকে বারাসত থানার ট্রাফিক ওসি বলে পরিচয় দিত। পরিপাটি পুলিশের ইউনিফর্ম কাঁধে দুটো স্টার তাই নিঃসন্দেহে মানুষ তাকে পুলিশ বলে বিশ্বাস করত।

এই ভাবেই চলছিল কিন্তু দেগঙ্গার নুর নগরের বাসিন্দা নুরুল ইসলাম অভিযোগ না করলে হয়তো এই ভুয়ো পুলিশ ধরাই পড়ত না। অভিযোগ,নুরুল ইসলামের ছেলের চাকরি দেওয়ার নাম করে ৪০ হাজার টাকা নিয়েছিল অভিযুক্ত। ফোন করে একাধিকবার টাকা চাওয়া হয় নুরুলের কাছে।
ফলত সন্দেহ হয় নুরুলের। তিনি যাচাই করেন যে সে সত্যি পুলিশ কিনা পরিশেষে দেগঙ্গা থানায় অভিযোগ করেন নুরুল।

অভিযোগের ভিত্তিতে কার্তিকপুর বাজার থেকে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদে জন্য আটক করে থানায় নিয়ে যায় দেগঙ্গা থানার পুলিশ।

ধরা পড়তেই অভিযুক্ত জানায় যে, ছোট থেকে তার পুলিশ হওয়ার স্বপ্ন ছিল।পুলিশ হতে পারেনি। তাই পুলিশের ইউনিফর্ম পরে ঘুরে বেড়াত। কিন্তু তার দাবি,সে কারও সঙ্গে প্রতারণা করেননি। তবে এটা স্বীকার করে নিয়েছে যে পুলিশের পোশাক পরে এবং নিজেকে পুলিশ পরিচয় দিয়ে সে অন্যায় করেছে।

অভিযুক্ত ব্যক্তি যে ভুয়ো পুলিশ অফিসার,তার প্রমাণ পাওয়া গেছে বলেই পুলিশ সূত্রে খবর। তবে এই চক্রের সঙ্গে আর কে বা কারা জড়িত আছে তা তদন্ত করে দেখছে দেগঙ্গা থানার পুলিশ।

মঙ্গলবার অভিযুক্তকে আদালতে তোলা হয়।